,
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | অর্থনীতি | বরিশাল সদর | আগৈলঝারা | উজিরপুর | গৌরনদী | বাকেরগঞ্জ | বানারিপাড়া | বাবুগঞ্জ | মুলাদি | মেহেন্দিগঞ্জ | হিজলা | পটুয়াখালী সদর | গলাচিপা | কলাপাড়া | দশমিনা | দুমকি | বাউফল | মির্জাগঞ্জ | রাঙ্গাবালী | ভোলা সদর | চরফ্যাশন | তজমুদ্দিন | দৌলতখান | বোরহানউদ্দিন | মনপুরা | লালমোহন | পিরোজপুর সদর | কাউখালী | জিয়ানগর | নাজিরপুর | নেছারাবাদ | ভাণ্ডারিয়া | মঠবাড়িয়া | স্বরূপকাঠি | বরগুনা সদর | আমতলী | তালতলী | পাথরঘাটা | বামনা | বেতাগি | ঝালকাঠি সদর | নলছিটি | রাজাপুর | কাঁঠালিয়া | বিনোদন | রাজনীতি | খেলাধুলা | বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি | শিক্ষা

অধ্যক্ষ আলহাজ্ব শাহজাহান খানের সংক্ষিপ্ত জীবনী

 

অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোঃ শাহজাহান খান ১৯৪০ ইং সালের ১ লা জানুয়ারী পিরোজপুর জিলার মঠবাড়ীয়া উপজেলার ধানীসাফা ইউনিয়নে ফুলঝুরি গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে (খান বাড়ী) জন্মগ্রহন করেন। তার পিতার নাম আলহাজ্ব আছমত আলী খান। মাতা মোসাম্মত হামিদা বেগম। মাতা ১৯৭৫ সালে ৬৫ বছর বয়সে এবং পিতা ১৯৯৯ সালে ৯৫ বছর বয়সে পরলোক গমন করেন। ৫ ভাই এবং ৪ বোনের  মধ্যে তিনি তৃতীয়। বড় ভাই অধ্যক্ষ আলহাজ্ব মোঃ ফজলুল হক খান জগন্নাথ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর, সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটির সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর (চেয়ারম্যান) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তৃতীয় ভাই আলহাজ্ব মোঃ শাহ আলম খান অবসরপ্রাপ্ত কৃষি অফিসার। চতুর্থ ভাই আলহাজ্ব ডাঃ মোঃ জাহাঙ্গীর খান এবিবিএস, চীফ মেডিকেল অফিসার, সিটি হাসপাতাল, লালমাটিয়া ঢাকা। পঞ্চম ভাই ডাঃ মোঃ ফিরোজ খান, এমবিবিএস, সহকারী পরিচালক, মিটফোড হাসপাতাল, ঢাকা। জনাব মোঃ শাহজাহান খান তার পূর্ব পুরুষ কর্তৃক ১৫০ বছর পূর্বে প্রতিষ্ঠিত প্রাথমিক স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করেন। ১৯৪৯ সনে তিনি ধানীসাফা এম.ই স্কুলে পঞ্চম শ্রেনীতে ভর্তি হন এবং দুই বছর পড়াশুনা করেন। ১৯৫১ সালে ধানীসাফা হাইস্কুলে সপ্তম শ্রেনীতে এবং ১৯৫২ সনে মঠবাড়ীয়া কে,এম লতিফ ইনস্টিটিউশন থেকে অষ্টম শ্রেণীতে কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। ১৯৫৪ সালে তিনি মঠবাড়ীয়া কে.এম লতিফ ইনস্টিটিউশন থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন ২য় বিভাগে। ১৯৫৭ সালে তিনি পি.সি কলেজ থেকে আই.কম পাশ করেন ২য় বিভাগে। ১৯৫৭ সনে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বি.কম অনার্সে ভর্তি হন। ১৯৫৮ সনে ১ম বর্ষ অনার্স বার্ষিক পরীক্ষায় প্রথম স্থান অধিকার করেন (কলা অনুষদ থেকে) তখন বানিজ্য বিভাগ কলা অনুষদের অন্তর্ভুক্ত ছিল। মাসিক ৩৫/- টাকা হারে বেতন ফ্রি দুই বছরের জন্য ১ম গ্রেড বৃত্তি পান এটাই সর্বোচ্চ বৃত্তি। ১৯৬০ সালে তিনি বি.কম (অনার্স) ২য় শ্রেনী পান। ১৯৬১ সনে এম.কম ২য় শ্রেণী পান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হতে। তিনি সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের আবাসিক ছাত্র ছিলেন। ১৯৬১ সনে নভেম্বর মাসে সাতকানিয়া কলেজ, চট্টগ্রামে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৬২ সালে জুলাই মাসে তিনি স্যার আশুতোষ কলেজ, কানুনগুপাড়া, চট্টগ্রাম প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৬২ সালে নভেম্বর মাসে তিনি ঢাকা সিটি কলেজে যোগদান করেন প্রভাষক হিসেবে ১৯৬৩ সনে সরকারি কর্মকমিশনের মাধ্যমে রাজশাহী সরকারি কলেজে নিয়োগ পান। কিন্তু যোগদান করেননি। এ সময় বাংলদেশে সরকারি কলেজ ছিল ৫টি। বি.এম কলেজ তখনও সরকারি হয়নি। ১৯৬৪ সালে ঢাকা কলেজে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীকালে সরকারী আনন্দমোহন কলেজ ময়মনসিংহ ও সরকারি জগন্নাথ কলেজ , ঢাকা অধ্যাপনা করেন। ২৮-১০-৬৪ লেকচারার-সরকারি ঢাকা কলেজ, ১২-০১-৭০ প্রফেসর/সহকারী অধ্যাপক, ২৬-০৫-৭৫ সহকারী প্রফেসর, ০১-০১-৭৯ প্রফেসর ১৮ বছর। ২৮-০৫-৮০ সন থেকে ১৯৯৬ সন পর্যন্ত অধ্যক্ষ ঝালকাঠী সরকারী কলেজ ও সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ,  ১৬ বছর ৭ মাস। ১৯৮৩ সালে সিলেকশন গ্রেড, (যুগ্ম সচিব পর্যায়ে)। ১৯৯৬ সালে চেয়ারম্যান, যশোর শিক্ষা বোর্ড। ১৯৯৭ সালে এল.পি.আর ১৯৯৮ অবসর সরকারি বি.এম কলেজ, বরিশাল। শিক্ষা বোর্ডে চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময়ে তিনি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া সিন্ডিকেট সদস্য ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক কাউন্সিল ও সিনেট সদস্য ছিলেন।
প্রশিক্ষনঃ বিইইআরআই, এনআইইএইআর, এনএইএম কর্তৃক পরিচালিত শিক্ষা প্রশাসনের উপর ৭/৮ বার কোর্সে অংশগ্রহণ করেন। যুগ্ম সচিব পর্যায়ে বিংশততম সিনিয়র স্টাফ কোর্সে বি.পি.এ.টি.সি. সাভার অংশগ্রহন ২৭-০৩-৯৪ থেকে ২৫-০৬-৯৪। দক্ষতার সাথে প্রশাসক হিসেবে অধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন যার স্বীকৃত স্বরূপ তিনি ১৯৬১ সনে ভারত ও পাকিস্তান শিক্ষা সফর করেন। শেষ্ঠ কলেজ শিক্ষক, বাকেরগঞ্জ ১৯৯১ সনে নির্বাচিত হন। তিনি ঝালকাঠী সরকারি কলেজে মসজিদ প্রতিষ্ঠা করে ছাত্রদের জামাতে নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা করেন। জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ কলেজ শিক্ষক এবং জাতীয় পর্যায়ে স্বর্ণপদক প্রাপ্ত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ১৯৯৪। তিনি পবিত্র হজ্জ ব্রত পালন করেন ১৯৭৮ সনে।
পুস্তক প্রণয়নঃ- (১) আধুনিক ব্যাংকিং (২) ইকনোমিক এবং কমার্শিয়াল (৩) বুক কিপিং এবং একাউন্টিং । তিনি ৫ (পাঁচ) সন্তানের জনক (৪ মেয়ে ও এক  ছেলে) বড় মেয়ে শিরিন আক্তার খান ইসলামের ইতিহাসে অনার্স, এম.এ। বড় জামাতা- ডাঃ মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সেলিম এমবিবিএস, হেলথ কেয়ার ক্লিনিক, প্যারারা রোড, বরিশাল। মেজ মেয়ে শারমিন আক্তার খান (কণা), অর্থনীতিতে অনার্স, এম.এ। জামাতাÑ ডাঃ মোঃ আনোয়ারুল হক নঈম এবিবিএস, এমপিএইচ, পিএইচডি, ইউএসডি একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের প্রধান। সেজ মেয়ে মাহিন আক্তার খান (কান্তা) রাষ্ট্রবিজ্ঞানে অনার্স, এম.এ। জামাতা- ডাঃ এম.এ শুকুর এমবিবিএস, এফসিপিএস সহযোগী অধ্যাপক, শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (সাবেক পিজি) গবেষনায় স্বর্ণপদক প্রাপ্ত ইউ.জি.সি ছোট মেয়ে মাহফুজা আক্তার আক্তার খান বিএ (অনার্স), এমএ দর্শন। জামাতাÑ রেজিন-উল কবির, পরিচালক ক্রিসেন্ট শিপিং লাইন ও সুরভী নেভিগেশন, একমাত্র ছেলে মোঃ শফিউল আজম খান এম.কম, বিকম, অনার্স, এমবিএ, (ডিইউ) যমুনা ব্যাংক কর্মরত সিনিয়র এক্সিকিউটিভ হিসেবে।
সেবামূলক কাজঃ (১) ১৯৬৯-৮০ পর্যন্ত জগন্নাথ কলেজে অধ্যাপক থাকাকালীন অবস্থায় আজিমপুর কলোনী পার্টি হাউজ মসজিদে সম্পাদক ছিলেন। (২) তিনি সরকারি ঝালকাঠি কলেজে মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেন ও ছাত্রদের জামাতে নামাজ আদায়ের ব্যবস্থা করেন। (৩) অবসর গ্রহণের পরে তিনি মুসলিম গোরস্তান জামে মসজিদের সহ-সভাপতি ও সভাপতি (৪) আঞ্জুমান, বরিশাল-এর আজীবন সদস্য ও সহ-সভাপতি (৫) অবসর গ্রহনের পর তিনি পূর্ব কলেজ এভিন্যু বায়তুন নূর জামে মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেন এবং প্রায় ১০ বছর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে এর প্রধান উপদেষ্টা। (৬) ছাবেরা খাতুন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের সদস্য, সহ-সভাপতি ও সভাপতি (৭) বরিশাল সিটি কলেজ গভর্নিং বডির সদস্য, (৮) তিনি বরিশাল লাইব্রেরী ইনস্টিটিউটের সভাপতি (৯) তিনি অবসর প্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী কল্যাণ সমিতির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও এর আজীবন সদস্য। (১০) তিনি অবসর প্রাপ্ত সরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতির প্রতিষ্ঠাতা সহ-সভাপতি ও পরে সভাপতি ও উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন। (১১) বরিশাল বিভাগীয় আইন-শৃংখলা কমিটির সদস্য। (১২) তিনি মঠবাড়িয়া কল্যাণ সমিতি, বরিশাল-এর প্রধান উপদেষ্টা।  (১৩) তিনি বাংলাদেশ অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী কেন্দ্রীয় কল্যান সমিতি, ঢাকা’র আজীবন সদস্য। (১৪) তিনি গ্রামের বাড়িতে ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানা লিল্লাহ্ বোডিং এর প্রতিষ্ঠাতা। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি অত্যন্ত সৎ, ধার্মিক ও সহজ সরল ব্যক্তি। দীর্ঘ জীবনে প্রশাসনিক কর্মকান্ড সততা ও ন্যায় নিষ্ঠার সাথে পালন করেছেন। তিনি অন্যায়ের সাথে কোনও দিন আপোষ করেননি। তিনি ঝালকাঠী সরকারি কলেজকে ধূমপান মুক্ত এলাকা ঘোষনা করেন। তিনি অত্যান্ত ধর্মভীরু, অমায়িক ও বন্ধু-বৎসল সজ্জন ব্যাক্তি। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কলেজ এভিন্যুতে অবস্থিত নিজ বাড়ি ‘খান মঞ্জিলে’ সপরিবারে বসবাস করতেন।

লেখক : অধ্যাপক নুরুল হক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | অর্থনীতি | বরিশাল সদর | আগৈলঝারা | উজিরপুর | গৌরনদী | বাকেরগঞ্জ | বানারিপাড়া | বাবুগঞ্জ | মুলাদি | মেহেন্দিগঞ্জ | হিজলা | পটুয়াখালী সদর | গলাচিপা | কলাপাড়া | দশমিনা | দুমকি | বাউফল | মির্জাগঞ্জ | রাঙ্গাবালী | ভোলা সদর | চরফ্যাশন | তজমুদ্দিন | দৌলতখান | বোরহানউদ্দিন | মনপুরা | লালমোহন | পিরোজপুর সদর | কাউখালী | জিয়ানগর | নাজিরপুর | নেছারাবাদ | ভাণ্ডারিয়া | মঠবাড়িয়া | স্বরূপকাঠি | বরগুনা সদর | আমতলী | তালতলী | পাথরঘাটা | বামনা | বেতাগি | ঝালকাঠি সদর | নলছিটি | রাজাপুর | কাঁঠালিয়া | বিনোদন | রাজনীতি | খেলাধুলা | বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি | শিক্ষা
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ
মতবাদ মিডিয়া লিমিটেড ১১৮ হাবিব ভবন , ৪র্থ তলা সদর রোড বরিশাল।
EngineerBD Network Design & Developed BY Eng.Zihad Rana