ঢাকা বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২

Motobad news

অন্ধদের পড়ানো স্কুল নিজেই অন্ধত্ব বরণের অপেক্ষায়

অন্ধদের পড়ানো স্কুল নিজেই অন্ধত্ব বরণের অপেক্ষায়

অন্ধদের জন্য লেখাপড়া করানো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি একের পর এক প্রতিক‚লতা মোকাবেলা করে নিজেই অন্ধ হওয়ার পথে বরিশালে সরকারি অন্ধ বিদ্যালয়। যে কক্ষে থাকছেন সেখানেই ক্লাস কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে। এতে করে লেখাপড়ার মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। তার উপরে চাহিদা মোতাবেক শিক্ষক, কর্মচারী নেই। স্যাসস্যাতে ভবনের অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ।

যদিও সমাজসেবা অফিস থেকে জানানো হয়েছে, চেষ্টা চলছে দ্রুত সংস্কারের। তবে বিদ্যালয় প্রশাসন থেকে জানা গেছে, ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও এখনো উল্লেখযোগ্য উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। সোমবার (২৩ মে) বিদ্যালয় ঘুরে দেখা গেছে, দ্বিতল বিশিষ্ট বিদ্যালয়টির দেয়ালের রং উঠে গেছে। জানালার অবস্থা নাজুক। নিচ তলায় একটি কক্ষ প্রধান শিক্ষকের। আরেকটি কক্ষে অফিসের কার্যক্রম চলে। বাকি কক্ষগুলো ছাত্রদের। এর মধ্যে একটি খাবার রুম, বাকিগুলোতে বসবাস করেন শিক্ষার্থীরা। সেখানে প্রায় ৩০ জন ছাত্র। টয়লেটের জন্য আধা কিলোমিটার দূরে যেতে হয়। টয়লেট থাকলেও তা প্রায় ব্যবহারের অনুপযোগী। ফলে ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বিড়ম্বনার শেষ নেই। অনেক ভবনের মেঝেতে কাঁচা, স্যাঁতস্যাঁতে।

জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের জন্য স্কুলের পাশ্ববর্তি একটি ভবন ছিল। সেখানে বালক শিক্ষার্থীরা বসবাস করতেন। ভবনটি পুরাতন হওয়ায় ২০১১ সালে ভেঙ্গে ফেলা হয়। এ কারনে স্কুলের ভিতর ছাত্রদের থাকার জন্য নির্ধারিত করে দেন কর্তৃপক্ষ। নতুন ভবন না হওয়ায় সরকারি স্কুলের ২/৩ টি কক্ষ ছাত্রদের থাকার স্থান করে দেয়া হয়। সরকারি অন্ধ বিদ্যালয়ে মোট ৩৫ জন জন ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। ২৯টি পদের বিপরীতে ১৪ জন কর্মরত রয়েছেন। এর মধ্যে প্রধান শিক্ষক পদটি শূন্য। সহকারি শিক্ষক পদ ২টি শূন্য রয়েছে। ৫ জন শিক্ষকের স্থানে ৪ জন কর্মরত। বাকি পদ খালি রয়েছে। অফিস সহায়ক ৫টি পদের ভিতরে একজন দায়িত্বে আছেন। তবে দায়িত্বরত অফিস সহায়ক একাই কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব পালন করছেন। অন্যদিকে পরিচ্ছনতা ১টি পদ, বাবুর্চি ২টি পদের ভিতরে ১টি পদ খালি রয়েছে। এত কিছুর পরেও বিদ্যালয়টি প্রতিবছরই অনুষ্ঠিত পরীক্ষার ফলাফলে সুনাম কুড়িয়েছে।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, এমনতিই চোঁখে দেখতে পারি না। তার ভিতরে একটি রুমের ভিতরে আলাদা বেডে থাকতে হচ্ছে। যে সিটে ঘুমাই, সেখানেই ব্যবহারের জিনিসপত্র রাখতে হয়। দুইপাশে বেড থাকায় হাটতে গিয়ে ব্যাথা পেতে হয়। একটি পড়ার টেবিলে দুইজনকে পড়তে হয়। বাথরুম ও গোসলের জন্য আধা কিলোমিটার দূরে যেতে হয়। পড়াশুনা করার ক্ষেত্রে ঝামেলায় পড়তে হয় আমারে। এ সমস্যার বিষয় স্কুলের স্যারদের বলেছি। তাঁরা আমাদের জানিয়েছেন সমাধানের জন্য চেষ্টা করচ্ছেন।

শিক্ষক খোকন চন্দ্র বর্মন, মেহরাব হোসাইন, আবিদ বলেন একটি অফিস কক্ষে বসে আমাদের কাজ করতে হচ্ছে। কষ্ট হলেও মেনে নিয়ে শিক্ষকের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছি। তবে এ কষ্ট বেশি দিন মনে হয় থাকবে না। স্কুল উন্নয়নে কর্তৃপক্ষ কাজ করে যাচ্ছেন।

বরিশাল সরকারি অন্ধ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (অতিরিক্ত) জাহান কবির বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের হাতের ছোঁয়া প্রায় দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লেগেছে। আমরা চাই প্রধামন্ত্রীর উন্নয়নের ছোঁয়া যেন আমাদের প্রতিষ্ঠানে লাগে। শিক্ষকগণ অতিকষ্টে অধ্যায়নরত ৩৫ জন ছাত্র-ছাত্রীদের অক্লান্ত পরিশ্রম করে পাঠদান করে যাচ্ছেন। এ স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ থেকে প্রতিবছর ছাত্র-ছাত্রীরা ভালো ফলাফল করে আসছে।

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক আল-মামুন তালুকদার বলেন, সরকারি অন্ধ বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়কে চিঠির মাধ্যমে অবগত করা হয়েছে। বিদ্যালয়ের ভিতরে ছাত্রাবাস রাখা হবে না। তাদের থাকার জন্য আলাদা ডরমেটরি ভবন নির্মাণ করা হবে। এছাড়া স্কুল ভবন একটু পুরাতন হয়ে গেছে। সেটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।


এইচকেআর