শিশুকে স্কুলে পাঠিয়ে যা খেয়াল করা দরকার

মতবাদ ডেস্ক | ১৫:০৮, মার্চ ২৪ ২০১৯ মিনিট

স্কুলে যাওয়ার প্রথম দিন, বাবা-মায়ের হাত ছেড়ে অন্য জগতে প্রবেশ করে শিশু। অধিকাংশ শিশুরই স্কুলে যেতে প্রথম দিকে প্রবল অনীহা থাকে। বাবা-মায়ের থেকে দূরে যেতে অসহায় বোধ করে তারা। সন্তানের সেই সমস্যা কাটানোর প্রাথমিক দায়িত্ব কিন্তু অভিভাবকেরই। স্কুলে যাওয়ার আগে বাড়িতেই শিশুকে কিছু জিনিস শিখিয়ে দিতে হবে। তবেই সে স্কুলে যাওয়া উপভোগ করতে পারবে। বাবা-মা দুইজনেই কর্মরত হলে অনেক কম বয়সেই শিশুকে প্লে স্কুলে ভর্তি করানো হয়। এ সময়ে শিশুরা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে। তখন ছোট সোনামনিকে বোঝাতে হবে, অফিস থেকে আপনারা যেমন নির্দিষ্ট সময়ে ফিরে আসেন, স্কুল থেকেও সে বাড়ি ফিরে আসবে। সন্তানকে স্কুলে দেয়ার আগে কিছু দিন একটু আলাদা ছেড়ে রাখুন। কোনো আত্মীয়র কাছে অল্প সময় রেখে দিন। এতে অন্য কারো কাছে থাকার উপর তার ভরসা তৈরি হবে। বাড়িতে শিশুটিকে এক জায়গায় কোনো খেলা দিয়ে বসিয়ে দিন। চেষ্টা করবেন অন্তত এক ঘণ্টা যেন সে জিনিসটি নিয়ে ব্যস্ত থাকে। স্কুলে শিশুকে নির্দেশ মেনে চলতে হবে। তাই বাড়িতে তাকে বিভিন্ন কাজ দিয়ে নির্দেশ ও শৃঙ্খলার অভ্যাস আগেই তৈরি করে দিন টয়লেট সংক্রান্ত: বাচ্চাদের টয়লেট পেলে তা বলতে বা বোঝাতে শেখাতে হবে। অনেক প্লে স্কুলে আবার ডায়পার পড়ার অনুমতি দেয় না। তাই এক বছরের পর থেকেই তাকে নির্দিষ্ট সময়ে বাথরুম করতে শেখান। স্বনির্ভরতা: স্কুলে যাওয়ার পরে কিছু জিনিস বাচ্চাকে করতে হবে। প্লে স্কুলে দুই ঘণ্টার জন্য টিফিনের প্রয়োজন পড়ে না। তবে অনেক স্কুলই বলে দেয়, বাড়ি থেকে খাবার দিয়ে দিতে। যাতে নিজে খাওয়ার অভ্যাস তৈরি হয়। খেয়াল রাখুন: সব কিছু শেখানোর পরও শিশু স্কুলে যেতে অনিচ্ছুক হতে পারে। এসব ক্ষেত্রে নানা প্রশ্ন করে জেনে নিতে হবে। কেউ স্কুলে তাকে বকেছে, মেরেছে বা তার গোপন স্থানে স্পর্শ করেছে কি না। সন্তোষজনক জবাব না পেলে স্কুলে কথা বলুন। সূত্র: ডিএম/বাজা