৫৭ ধারায় ইমতিয়াজ মাহমুদ গ্রেপ্তার

মতবাদ ডেস্ক | ১৬:১৫, মে ১৫ ২০১৯ মিনিট

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ে ফেসবুকে উস্কানিমূলক মন্তব্যের অভিযোগে তথ্য-প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় করা মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে লেখক ও আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদকে। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক এই নেতাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে বলে বুধবার সকালে অভিযোগ করে পরিবার। পুলিশের একটি সূত্র ইমতিয়াজ মাহমুদকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন। ইমতিয়াজ মাহমুদের ভাই পারভেজ মাহমুদ দুপুর পৌনে ২টার দিকে  বলেন, আজ সকাল ১০টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বনানী থানায় রাখা হয়েছে। দুপুর ২টার দিকে কোর্টে নিয়ে যাওয়ার কথা। আমরা এখন কোর্টের সামনে অপেক্ষা করছি। তিনি বলেন, আমরা যতটুকু জেনেছি, খাগড়াছড়িতে তার নামে একটা মামলা ছিল। সেই মামলায় জামিন নেওয়া ছিল। কিন্তু সেই মামলাতেই তাকে আটক করা হয়েছে কিনা আমরা এখনো জানি না। এছাড়া তার নামে আর কোনো মামলা আছে বলে আমাদের জানা নেই। পারভেজ মাহমুদ বলেন, আমরা এখন তার সঙ্গে কথা বলতে চাচ্ছি। কিন্তু পুলিশ আমাদেরকে দেখা করতে দিচ্ছে না। আমরা বাইরের তথ্য থেকে জেনেছি তাকে গ্রেপ্তার করে বনানী থানায় রাখা হয়েছে। ইমতিয়াজ মাহমুদকে ঠিক কি কারণে গ্রেপ্তার করেছে এখনো সঠিকভাবে কিছুই জানেন না বলে জানান তার ভাই। উল্লেখ্য, শফিকুল ইসলাম নামে খাগড়াছড়ির এক বাসিন্দা ইমতিয়াজ মাহমুদের বিরুদ্ধে বিতর্কিত ৫৭ ধারায় মামলাটি দায়ের করেন। পরে মামলায় পুলিশি প্রতিবেদন দাখিল পর্যন্ত তিনি সুপ্রিম কোর্ট থেকে জামিন পান। মামলার এজহারে উল্লেখ করা হয়, “সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদ সম্প্রতি তার ফেসবুকে আইডিতে পাহাড়ের ইস্যুতে নানা মন্তব্য করেছেন। এর মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসকারী মধ্যে সাম্প্রদায়িক উস্কানি ছড়ানো হয়েছে। বাঙালি জাতিকে হেয় করে সেটলার আখ্যায়িত করা হয়েছে।” আইনজীবী ইমতিয়াজের পোস্টগুলো ‘পাহাড়ে দাঙ্গা’ লাগানোর জন্য পরিকল্পিত বলেও অভিযোগ করেন বাদী শফিকুল। এদিকে ৫৭ ধারাকে কালো আইন আখ্যা দিয়ে এই আইন বাতিল এবং কবি হেনরী স্বপন ও লেখক ইমতিয়াজ মাহমুদকে দ্রুত মুক্তির দাবিতে বুধবার বিকেলে শাহবাগে বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দিয়েছে লেখক ও মুক্তমনা সংগঠনগুলো। ডিএম/দেরু