ঢাকা শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১

Motobad news

মাসে '৪৫ দিন' কাজ করেন বিদ্যুৎ বিভাগের শ্রমিকরা! 

মাসে '৪৫ দিন' কাজ করেন বিদ্যুৎ বিভাগের শ্রমিকরা! 

কাজের চাপে ঘুম নাওয়া-খাওয়া ভুলে গেছেন জরুরী বিভাগে কাজ করা বরিশাল পল্লী বিদ্যুতের কর্মীরা। ঝড়-বৃষ্টি কোনকিছুই থামাতে পারেনা তাদের। গ্রাহক সন্তুষ্টি ও ঊর্ধ্বতন মহলের আদেশ তাড়া করে বেড়ায় তাদের। নেই নির্দিষ্ট কর্মঘণ্টা। দৈনিক ১৪ থেকে ১৬ ঘণ্টা কাজ করতে হয় তাদের।  সপ্তাহে একদিন ছুটি থাকলেও কাজের চাপে সেই ছুটির দিনে দায়িত্ব পালন করতে হয় তাদের।  

ওদিকে নেই ওভারটাইম ভাতা। প্রতিদিন কমপক্ষে ৪ ঘণ্টা অতিরিক্ত কাজ করলে মাসে ৩০x৪ = ১২০ ঘণ্টা অর্থাৎ ১৫  কর্ম দিবস অতিরিক্ত কাজ করতে হয়। সুতরাং পল্লী বিদ্যুতের শ্রমিকরা ৩০+১৫ =৪৫ দিন ডিউটি করেন।

শ্রম আইন ২০০৬ অনুযায়ী দৈনিক কর্মঘণ্টার ব্যাপারে বলা আছে,“কোন প্রাপ্তবয়স্ক শ্রমিক কোন প্রতিষ্ঠানে সাধারণতঃ দৈনিক আট ঘণ্টার অধিক সময় কাজ করিবেন না বা তাহাকে দিয়ে কাজ করানো যাইবে না। তবে শর্ত থাকে যে, ধারা ১০৮ এর বিধান সাপেক্ষে কোন প্রতিষ্ঠানে উক্তরূপ কোন শ্রমিক দৈনিক দশ ঘণ্টা পর্যন্ত ও কাজ করিতে পারিবেন।” ১০৮ এর বিধানে অধিককাল কর্মের জন্য অতিরিক্ত ভাতার ব্যাপারে বলা আছে “(১)যে ক্ষেত্রে কোন শ্রমিক কোন প্রতিষ্ঠানে কোন দিন বা সপ্তাহে এই আইনের অধীন নির্দিষ্ট সময়ের অতিরিক্ত সময় কাজ করেন, সে ক্ষেত্রে তিনি অধিকাল কাজের জন্য তাহার মূল মজুরী ও মহার্ঘ্যভাতা এবং এডহক বা অন্তবর্তী মজুরী, যদি থাকে, এর সাধারণ হারের দ্বিগুণ হারে ভাতা পাইবেন। কিন্তু শ্রম আইনের তোয়াক্কা করেই কর্মীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করান পল্লী বিদ্যুতের ঊর্ধ্বতন মহল।

বরিশাল পল্লী বিদ্যুত সমিতির লাইনম্যান শাহাদাত জানান, নির্দিষ্ট কর্মঘণ্টা নাই; আনলিমিটেড কাজ করতে হয়। এখানে আসার পর মাইনকা চিপায় পড়ছি।  আমাগো কোন ঝড় বৃষ্টি নেই। লকডাউন আসার পর আরও কাজ বেড়ে গেছে। এখানে কোন নিয়ম নেই। ১২ ঘণ্টা, ১৪ঘণ্টা, এমনকি ১৬ ঘণ্টাও কাজ করতে হয়।

লাইনম্যান মিনারুল ইসলাম বলেন, বিদ্যুতের কাজের কোন ঠিক নেই যখন যেখানে ডাক পড়ে সেখানে ছুটে যেতে হয়। নিয়মকানুন মানা হয়না মোটেই। চাকরিতে জয়েন করার পরে দেখি সবাই করে তাই আমাদেরও করতে অতিরিক্ত কাজ করতে হয়। ১৬ ঘণ্টাও কাজ করেছি। বর্ষায় বেশি লাইন বন্ধ থাকে এই সময় তো কাজের কোন শেষ নাই।  কোন ওভারটাইম নাই। ঝুঁকি ভাতা হিসেবে মাসে শুধু ১ হাজার ৫০০ টাকা দেওয়া হয়। 

বরিশাল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ১ এর সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার প্রকৌশলী আবদুল্লাহ মন্নান জানান, ঝড়ের রাতে কর্মীরা রাত দুইটা পর্যন্তও কাজ করেন। কর্মী সংকট রয়েছে। তাদের ওভারটাইম দেওয়া হয় না এটা সত্য। তবে অন্যান্য ভাতা আছে। 

কাজের চাপে নির্দিষ্ট কর্মঘণ্টা মানা হয়না স্বীকার করে তিনি বলেন, পল্লী বিদ্যুত সমিতি বরিশাল ১ এর অধীনে  বরিশাল সদর, হিজলা,  মুলাদী, বাকেরগঞ্জ ও মেহেন্দিগঞ্জ এই ৫ উপজেলায় ৬ হাজার কিলোমিটার বিদ্যুত সংযোগ রয়েছে। কিন্তু কর্মী সংকটে কাজের চাপ বেশী। সারা বাংলাদেশে প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ কিলোমিটার বিদ্যুতের লাইন রয়েছে কিন্তু দেশে মোট লাইনম্যান আছেন মাত্র ১৩ হাজার। এ সংকট সারাদেশেই।


এমবি