ঢাকা রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

Motobad news

বাসমতী ছাড়া কয়েক হাজার টন ভারতের চাল কিনবে বাংলাদেশ

বাসমতী ছাড়া কয়েক হাজার টন ভারতের চাল কিনবে বাংলাদেশ

বাসমতী নয়, এমন চাল ভারতের (India)কাছে থেকে কিনতে চাইছে বাংলাদেশ। ভারত থেকে ৫০ হাজার টন এই রকম চাল কিনতে চেয়ে টেন্ডার ডেকেছে বাংলাদেশ। 
 

আফ্রিকা ও চিনের পরে এবার, বাসমতী নয়, এমন চাল ভারতের কাছে থেকে কিনতে চাইছে বাংলাদেশ
ভারত থেকে ৫০ হাজার টন এই রকম চাল কিনতে চেয়ে টেন্ডার ডেকেছে বাংলাদেশ
বিদেশে চালের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে ভারতের চাল রফতানিকারীরা উপকৃত হবেন বলেই মনে করা হচ্ছ। করোনাকালে আর্থিকভাবে লাভবান হতে চলেছেন ভারতের চাল রফতানিকারীরা। আফ্রিকা ও চিনের পরে এবার, বাসমতী নয়, এমন চাল ভারতের কাছে থেকে কিনতে চাইছে বাংলাদেশ। ভারত থেকে ৫০ হাজার টন এই রকম চাল কিনতে চেয়ে টেন্ডার ডেকেছে বাংলাদেশ। বিদেশে চালের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ার ফলে ভারতের চাল রফতানিকারীরা উপকৃত হবেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

ভারতের চাল রফতানি কারকদের সংগঠন All India Rice Exporters Association-এর এগজিকিউটিভ ডিরেক্টর বিনোদ কউল বলেন , 'বাংলাদেশ আমাদের দেশের National Agricultural Cooperative Marketing Federation of India (Nafed)-এর মাধ্যমে ৫০ হাজার চাল কিনতে চাইছে। বাসমতী চাল ছাড়া অন্য যে চাল তারা কিনতে চাইছে তার ফলে লাভবান হবে আমাদের দেশের চাল ব্যবসা'। তিনি জানিয়েছেন, চিন ও আফ্রিকাতেও বাসমতী চাল ছাড়া অন্য চালের চাহিদা আছে এবং তারা আশা করছে যে এই রকম চাহিদা থেকে গেলে গত বছরে যে পরিমাণ চাল বিদেশে রফতানি করা হয় এই বছর তার চেয়ে বেশি হবে।

করোনা মহামারির মধ্যেও গত আর্থিক বছরে, ভারত রেকর্ড পরিমাণ চাল রফতানি করে। গত অর্থবর্ষে ৪.৬ মিলিয়ন টন বাসমতী চাল এবং বাসমতী নয় এমন ১৩.৯ মিলিয়ন টন চাল রফতানি হয়। এবং গম বিক্রি হয় ২.০৮ মিলিয়ন টন, যা বিগত ৬ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। বাসমতী ছাড়া অন্য যে চাল রফতানি হয়, তার প্রায় ৫৪% রফতানি হয় আফ্রিকাতে। যে চাল আফিকাতে পাঠানো হয় তা থেকে ভারতের আয় হয় $ ৪.৭৯৬ বিলিয়ন।


বিনোদ আরও জানান, ‘চিনেও চালের চাহিদা বাড়ছে এবং এই রকম চাহিদা যদি থাকে তাহলে গত বছর বাসমতী চাল নয় এমন চাল রফতানি করে যে আয় করেছিলাম, এই বার তাও ছাড়িয়ে যাবে।’ বিশ্বের আরও অনেক দেশের এই চালের চাহিদা বাড়ছে বলেও জানিয়েছে চাল রফতানিকারকদের সংগঠন।

কারণ, বিশ্বের অন্য দেশের তুলনায় ভারতের চালের দাম তুলনায় কম। যেখানে প্রতি টন থাইল্যান্ডের চালের দাম $ ৪৯৫, ভিয়েতনামের চালের দাম $ ৪৭০ এবং পাকিস্তানের চালের দাম $ ৪৪০, সেখানে ভারতের চাল পাওয়া যায় $ ৩৬০ থেকে ৩৯০ ডলারে । একটি চাল উৎপাদক সংস্থার আধিকারিক সুরজ আগরওয়ালা জানান, পশ্চিমবঙ্গ থেকেই বেশি চাল রফতানি হয় বাংলাদেশে , এখন বাংলাদেশ যে চাল চাইছে তাতে এই রাজ্যের ধানচাষ আরও বাড়বে।


এমবি