ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

Motobad news

হোয়াটসঅ্যাপেই ফেঁসে গেছেন আরিয়ান-রিয়া

হোয়াটসঅ্যাপেই ফেঁসে গেছেন আরিয়ান-রিয়া

দুজনের গ্রেফতারের মধ্যে ফারাক মোটামুটি এক বছরের। সুশান্ত সিং রাজপুতের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী এবং শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খান। দু’জনের বিরুদ্ধেই মাদক সংগ্রহ এবং সেবনের অভিযোগ। তাদের আটক থেকে গ্রেফতার হওয়ার মধ্যেও অনেকেই মিল পাচ্ছেন বিস্তর। আর সবচেয়ে বড় মিল যেখানে— দুই ক্ষেত্রেই বহু তথ্য উঠে এসেছে অভিযুক্তদের হোয়াটসঅ্যাপ থেকে।

গত বছর সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুর পর প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তীকে গ্রেফতার করে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি)। ৮ সেপ্টেম্বর বাইকুল্লা জেলে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। তার পরে ৭ অক্টোবর জামিনে মুক্তি। প্রাথমিকভাবে রিয়ার হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট খতিয়ে দেখে তাকে হেফাজতে নিয়েছিলো কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।

এনসিবির দাবি, রিয়ার হোয়াটসঅ্যাপ কথোপকথন থেকে বেশ কিছু তথ্য উঠে এসেছিল। জানা গিয়েছিল-মডেল-অভিনেত্রী শুধু নিজেই মাদক নেন, এমন নয়। সুশান্তকেও মাদক জোগান দিতেন তিনি। একটি মাদক চক্রের সঙ্গেও নাকি যোগাযোগ ছিল তার।

চলতি বছরের অক্টোবরে একটি প্রমোদতরীর পার্টি থেকে আরিয়ানকে আটক করে এনসিবি। তদন্তকারীদের অনুমান, শাহরুখের ছেলে কোনও আন্তর্জাতিক মাদক চক্রের সঙ্গে জড়িত। বন্ধু আরবাজ শেঠ মার্চেন্টের সঙ্গেও মাদক নিয়ে একাধিক বার কথাও হয় তার। রিয়ার মতোই আরিয়ানের হোয়াটসঅ্যাপ কথোপকথন ঘেঁটেই এ ধরনের তথ্য তুলে আনে এনসিবি।

রিয়া এবং আরিয়ানের ক্ষেত্রেই এনসিবির মূল অস্ত্র অভিযুক্তদের হোয়াটসঅ্যাপের কথোপকথন। জানা গেছে, দুইজনের কাছ থেকেই কোনও নিষিদ্ধ মাদক মেলেনি। হোয়াটসঅ্যাপে কথাবার্তার উপর নির্ভর করেই মাদক বিক্রেতাদের সঙ্গে তাদের যোগসূত্র খুঁজে বার করার চেষ্টা করে এনসিবি। ২৮ দিন জেলে থাকার পর ছাড়া পেয়েছিলেন রিয়া। কিন্তু আরিয়ানের ক্ষেত্রে জামিনের আবেদন একাধিক বার খারিজ হয়ে গিয়েছে ইতিমধ্যে। আপাতত জেলেই দিন কাটছে তার।


এমবি