ঢাকা বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

Motobad news

ব্যাংক থেকে আবারও ঋণ নিচ্ছে সরকার

ব্যাংক থেকে আবারও ঋণ নিচ্ছে সরকার

একসময় সঞ্চয়পত্র বেশি বিক্রি হওয়ায় সরকারের দৈনন্দিন কার্যক্রমের ব্যয় মিটে যেত। ফলে ব্যাংক খাত থেকে সরকারের ঋণের প্রয়োজন হত না। বরং সরকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি কমানোর জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করে। সাম্প্রতিককালে সরকারের ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় এবং রাজস্ব আশানুরূপ না হওয়ায় সরকারকে বাধ্য হয়েই ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে হচ্ছে। চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসেই (জুলাই ও আগস্ট) ঋণ করেছে সাড়ে ৭ হাজার কোটি টাকা। যদিও চলতি অর্থবছরের জন্য ব্যাংক থেকে নির্ধারিত ৭৬ হাজার ৪৫২ কোটি টাকা ঋণের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

তথ্যমতে, গত অর্থবছর সরকারের ঋণ চাহিদা ছিল খুব কম। অর্থবছরের শুরুর দিকে ব্যাংক থেকে যে পরিমাণ ঋণ নিয়েছিল বছর শেষে পরিশোধ করে আরও বেশি। অবশ্য শেষ দিকে ২৬ হাজার ৭৮ কোটি টাকা বেড়েছিল। গত অর্থবছরে সরকারের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮৪ হাজার ৯৮০ কোটি টাকা। অন্যদিকে গত ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকার রেকর্ড পরিমাণ ঋণ নিয়েছিল। ওই অর্থবছরে সরকারের মোট ঋণের পরিমাণ ছিল ৭২ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা।


চলতি অর্থবছরের প্রথম মাসে আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় রাজস্ব আদায় বেশি হয়েছে। এ সময়ে ১৫ হাজার ৩৫৪ কোটি টাকার রাজস্ব আয় হয়েছে, যা আগের বছরের চেয়ে ৪ শতাংশ বেশি। অন্যদিকে চলতি অর্থবছরের কোন মাসের সঞ্চয়পত্রের বিক্রির হিসাব এখনো পাওয়া যায়নি। তবে কয়েক মাসের হিসাব দেখলে বোঝা যায় যে সঞ্চয়পত্রের বিক্রি বাড়ছে। গত অর্থবছরে ৪১ হাজার ৯৬০ কোটি টাকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি হয়। গত অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২০ হাজার কোটি টাকা। গত অর্থবছর শেষে সঞ্চয়পত্রে সরকারের মোট ঋণ দাঁড়িয়েছে তিন লাখ ৪৪ হাজার ৯৪ কোটি টাকা। এদিকে চলতি অর্থবছর সঞ্চয়পত্র থেকে ৩২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে।
সাধারণত, প্রতি অর্থবছরে সরকার ব্যাংক খাত থেকে কমবেশি ঋণ নিয়ে আসছে। তবে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ব্যাংক খাত থেকে কোন টাকা ঋণ নেয়নি সরকার। ওই অর্থবছরে উল্টো বকেয়া পরিশোধ করেছিল। মূলত, ওই অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র থেকে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি অর্থের যোগান আসায় ব্যাংক থেকে সেবছর ঋণ নেয়নি সরকার।


এমবি