ঢাকা শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

Motobad news

যেভাবে কবর জিয়ারত করতে হয়, যে কারনে করতে হয়

যেভাবে কবর জিয়ারত করতে হয়, যে কারনে করতে হয়
গুগল নিউজে (Google News) দৈনিক মতবাদে’র খবর পেতে ফলো করুন

মৃত ব্যক্তিকে কবরস্থ করাই ইসলামের বিধান। কবর মৃত ব্যক্তির জন্য পরকালের প্রথম স্তর। আর জীবিত মানুষের জন্য শিক্ষালাভের মাধ্যম। কবর মানুষকে মৃত্যু ও পরকালের কথা স্মরণ করিয়ে দেয় এবং পার্থিব জীবনে আল্লাহর অনুগত হওয়ার উৎসাহ দেয়।

এ জন্য রাসুলুল্লাহ (সা.) কবর জিয়ারত করতে উৎসাহিত করেছেন।

কবর জিয়ারতের বিধান : ইমাম নববী (রহ.) বলেন, বেশির ভাগ আলেম এই বিষয়ে একমত যে কবর জিয়ারত করা মুস্তাহাব। তাঁদের দলিল বিখ্যাত। যাতে বলা হয়েছে, আমি তোমাদের কবর জিয়ারত করা থেকে নিষেধ করতাম। তোমরা কবর জিয়ারত কোরো। কেননা তা দুনিয়াবিমুখ করে এবং পরকালের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ১৫৭১; শরহুল মুহাজ্জাব : ৫/২৮৪)

প্রাজ্ঞ আলেমরা বলেন, কবর যদি নিজ গ্রাম, এলাকা বা শহরের বাইরে হয়, তবে শুধু কবর জিয়ারতের জন্য কোথাও সফর করবে না, বরং দূর থেকেই দোয়া করবে। কেননা রাসুলুল্লাহ (সা.) তা করতে নিষেধ করেছেন।

কবরস্থানে প্রবেশের দোয়া : রাসুলুল্লাহ (সা.) কবরস্থানে প্রবেশের সময় নিম্নোক্ত দোয়া পাঠ করতেন এবং সাহাবিদেরকেও পাঠ করতে বলতেন। তা হলো—তোমাদের ওপর সালাম ও শান্তি বর্ষিত হোক হে মুমিন কবরবাসীরা! তোমাদের কাছে পরকালে নির্ধারিত যেসব বিষয়ের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল তা তোমাদের কাছে এসে গেছে। আল্লাহর ইচ্ছায় আমরাও তোমাদের সাথে মিলিত হব। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ২১৪৫ ও ২১৪৭)

দাফনের পর প্রথম দোয়া : কোনো মুসলিমকে কবরে রাখার পর প্রথম দোয়া করতে হয় দাফন শেষ হওয়ার পর। উসমান ইবনে আফফান (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) মৃতের দাফন শেষ করে সেখানে দাঁড়িয়ে বলতেন, তোমাদের ভাইয়ের জন্য তোমরা ক্ষমা প্রার্থনা করো এবং সে যেন (ঈমানের ওপর) প্রতিষ্ঠিত থাকে সে জন্য দোয়া করো। কেননা তাকে এখনই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৩২২১)

অন্য বর্ণনায় এসেছে, তাঁরা দোয়া করতেন, ‘আল্লাহুম্মা সাব্বিতহু বিল-কাওলিস সাবিতি ফিল হায়াতিদ দুুনিয়া ওয়া ফিল আখিরা। ’ অর্থ হলো, হে আল্লাহ! আপনি আপনার সুদৃঢ় বাক্যের (কলেমার) ওপর  পার্থিব জীবনে ও পরকালে অবিচল রাখুন।

জিয়ারতে কবরবাসীর উপকার : কোরআনের আয়াত ও বিশুদ্ধ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত কোনো মুসলিম যদি সুন্নত পদ্ধতিতে কবর জিয়ারত করে এবং বিদআত থেকে বিরত থাকে, তখন কবরবাসী তা থেকে উপকৃত হয়। কেননা কবর জিয়ারতের মূল বিষয়টিই হলো কবরবাসীর পাপমুক্তি ও মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য দোয়া করা। আর কোরআনে মৃত ব্যক্তিদের জন্য দোয়া করতে বলা হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা তাদের পরে এসেছে, তারা বলে, হে আমাদের প্রতিপালক! আমাদের এবং ঈমানে অগ্রণী আমাদের ভাইদের ক্ষমা করুন এবং মুমিনদের বিরুদ্ধে আমাদের অন্তরে বিদ্বেষ রাখবেন না। হে আমাদের প্রতিপালক! আপনি তো দয়ার্দ্র, পরম দয়ালু। ’ (সুরা : হাশর, আয়াত : ১০)

রাসুলুল্লাহ (সা.) জানাজার নামাজে মৃত ব্যক্তির জন্য দোয়া করতেন, হে আল্লাহ! তাকে ক্ষমা করে দিন ও তার প্রতি দয়া করুন। তাকে নিরাপদে রাখুন ও তার ত্রুটি মার্জনা করুন। তাকে উত্তম সামগ্রী দান করুন ও তার প্রবেশপথকে প্রশস্ত করে দিন। তাকে পানি, বরফ ও বৃষ্টি দ্বারা মুছে দিন এবং পাপ থেকে এরূপভাবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে দিন যেরূপ সাদা কাপড় ময়লা থেকে পরিষ্কার হয়ে যায়। তাকে তার ঘরকে উত্তম ঘরে পরিণত করুন, তার পরিবার থেকে উত্তম পরিবার দান করুন, তার স্ত্রীর তুলনায় উত্তম স্ত্রী দান করুন। তাকে জান্নাতে প্রবেশ করান এবং কবরের শাস্তি ও জাহান্নামের শাস্তি থেকে বাঁচাও। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ২১২১)

সন্তানের দোয়ার বিশেষ মূল্য : যেকোনো মুমিন ব্যক্তির দোয়া দ্বারা কবরবাসী উপকৃত হয়। তবে সবচেয়ে বেশি উপকৃত হয় সন্তানের দোয়া দ্বারা। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, জান্নাতে মানুষের মর্যাদা অবশ্যই বৃদ্ধি করা হবে। সে বলবে, এটা (মর্যাদা বৃদ্ধি) কিভাবে হলো? বলা হবে, তোমার জন্য তোমার সন্তানের ক্ষমা প্রার্থনার বদৌলতে। (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ৩৬৬০)

কবর জিয়ারতের শিষ্টাচার : কবর জিয়ারতের সময় আলেমরা নিম্নোক্ত বিষয়গুলো লক্ষ রাখতে বলেন। তা হলো—

১. কবরবাসীর উদ্দেশে সালাম দেওয়া। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ২১৪৫)

২. মাসনুন দোয়া পাঠ করা। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ২১৪৫)

৩. দোয়ার সময় কবরের দিকে না ফিরে কিবলামুখী হয়ে দোয়া করা। তবে হাত উঠিয়ে দোয়া করতে কোনো সমস্যা নেই। কেননা রাসুলুল্লাহ (সা.) কবরস্থানে গিয়ে তাদের জন্য হাত তুলে দোয়া করেছেন। (মুসনাদে আহমদ, হাদিস : ২৪৪৯৩)

৪. কবরের ওপর জুতা পায়ে না হাঁটা। (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ১৫৬৭)

৫. কবরের ওপর না বসা। (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ৯৭১)

৬. সরাসরি হাদিস দ্বারা প্রমাণিত না হলে বুজুর্গ আলেমরা মৃত ব্যক্তির ইসালে সাওয়াবের জন্য সুরা ইয়াসিন, সুরা ফাতিহা, সুরা ইখলাস ইত্যাদি সুরা পাঠ করতে বলেন।

দোয়ার জন্য কবরস্থানে যাওয়া আবশ্যক নয় : মৃত ব্যক্তির জন্য দোয়া করতে কবরস্থানে যাওয়া আবশ্যক নয়। বরং যে কোনো স্থান থেকেই দোয়া করা যায়। যেমন রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন কোনো ব্যক্তি মারা যায় তখন তার আমলের দুয়ার বন্ধ হয়ে যায়। তবে তিনটি বিষয় ব্যতিক্রম : সদকায়ে জারিয়া, এমন জ্ঞান যা দ্বারা অন্যরা উপকৃত হয়েছে অথবা এমন নেক সন্তান যে তার জন্য দোয়া করে। (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ২৮৮০)

জিয়ারতকারীর উপকার : কবর জিয়ারত করার দ্বারা মুমিন ব্যক্তির ঈমান ও আমলের উন্নতি হয়। তার মনোযোগ পার্থিব জীবন থেকে পরকালমুখী হয়। যেমনটি হাদিসে এসেছে, আমি তোমাদের কবর জিয়ারত করা থেকে নিষেধ করতাম। তোমরা কবর জিয়ারত করো। কেননা তা দুনিয়াবিমুখ করে এবং পরকালের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস : ১৫৭১)

সবাইকে মৃত্যুর স্মরণ ও পরকালের মুক্তি নসিব করুন। আমিন।


এসএমএইচ
গুগল নিউজে (Google News) দৈনিক মতবাদে’র খবর পেতে ফলো করুন