ঢাকা বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২

Motobad news

প্রেম করে বিয়ে করার ৪ সুবিধা

প্রেম করে বিয়ে করার ৪ সুবিধা

নারী ও পুরুষের মধ্যে অন্যতম সুন্দর সম্পর্ক হলো প্রেম। যাকে কাব্যের ভাষায় প্রণয় বলা হয়। দুজনের প্রেমের সম্পর্ক যখন বিবাহ বন্ধনের রূপ পায় তখন তাকে বলা হয় পরিণয়। বিয়ের ক্ষেত্রে কোনটি বেশি ভালো? পারিবারিকভাবে দেখাশোনার মাধ্যমে, নাকি প্রেম করে বিয়ে? 

এ বিষয়ে নানাজনের নানা মত রয়েছে। তবে বর্তমান যুগে বেশিরভাগ মানুষ মনে করেন, বিয়ের আগে স্বামী-স্ত্রীর পরিচয় থাকা বা প্রেম করে বিয়ে করার বেশকিছু সুবিধা রয়েছে। কী সেগুলো? জানুন- 

নিজেদের মধ্যে বোঝাবুঝি 

বিয়ে কেবল দুজন মানুষের মধ্যে সম্পর্ক নয়। দুটি পরিবারের মধ্যেও নতুন সম্পর্কের জন্ম দেয় এটি। নব দম্পতিদের সংসারজীবন শুরুর পর অনেকটা সময় চলে যায় পরিবারের সঙ্গে পরিচিত হতে। নিজেদের পছন্দ অপছন্দের কথা জানার তেমন সুযোগ পান না তারা। তাই হঠাৎ করেই মনোমালিন্যের সৃষ্টি হতে পারে। বিয়ের আগে বন্ধুত্ব বা প্রেম থাকলে এই ভুল বোঝাবুঝির আশঙ্কা কম থাকে। একে অন্যের পছন্দ-অপছন্দ জানেন বলে দাম্পত্য জীবন মধুময় হয়। 

বিশ্বাস

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের মূল ভিত হলো বিশ্বাস। এই বিষয়টি না থাকলে সংসারে নানা ঝামেলা হয়। এমনকি সম্পর্ক টিকিয়ে রাখাও কঠিন হয়ে পড়ে। বিয়ের আগে প্রেমের সম্পর্কে থাকলে দুজনের মধ্যে বিশ্বাসের সম্পর্ক গড়ে ওঠার যথেষ্ট সময় থাকে। তারা একে অন্যের চিন্তা-ভাবনা সম্পর্কে জানেন। ফলে বিয়ের পর বিশ্বাস থাকে অটুট। 

ভুল-ক্রুটি মেনে নেওয়া 

কোনো মানুষই পুরোপুরি পারফেক্ট নন। প্রত্যেকের জীবনেই ভুল-ত্রুটি বা দুর্বলতা থাকতে পারে। বিয়ের পর হঠাৎ অপরপক্ষের সম্পর্কে এসব জানার পর অনেকের দম্পতির মধ্যেই হতাশার জন্ম নেয়। যা থেকে সংসারে অশান্তি সৃষ্টি হয়। বিয়ের আগে প্রেমের সম্পর্ক থাকলে একে অপরের ত্রুটিগুলো জানা এবং তা মেনে নেওয়ার সময় পান। তাই, পরবর্তী দাম্পত্যজীবন সহজ হয়। 

পারিবারিক কলহ এড়ানো 

অনেক পরিবারেই বিয়ের পর যৌতুক বা উপহারকে কেন্দ্র করে কলহ ও ভুল বোঝাবুঝি হয়ে থাকে। প্রেম করে বিয়ে করলে এসব ঝামেলা এড়ানো যায়। এক্ষেত্রে পরিবার এসব ব্যাপারে চুপ থাকা শ্রেয় মনে করেন। 

বিয়ে মানে দুজন মানুষ একসঙ্গে জীবন কাটানোর শর্তে এক সুতোয় বাঁধা পড়া। বড় কিছু দায়িত্ব মাথায় নেওয়া। তাই হুট করে অপরিচিত কাউকে বিয়ে করা ঠিক নয়। বরং বিয়ের আগে কথাবার্তা বলে বুঝে নিন, মানুষটি আসলেই আপনার মন বুঝে কিনা। আপনার চাওয়া-পাওয়া, ইচ্ছা-অনিচ্ছার সঙ্গে তার মেলে কিনা। তাহলে পরবর্তী সমস্যাগুলো এড়ানো সহজ হবে। 


এএজে